12/02/2018

ভালোবাসার ফ্রেমে দুর্গাপূজা

ষষ্ঠীর সকাল ৭টা, এখনও বিছানা ছেড়ে ওঠেনি তমাল। হঠাৎ মোবাইল ফোনটা বেজে উঠল, সুমির messege ”শুভ সকাল.. ও শুভ ষষ্ঠী 🙂 ” সঙ্গে সঙ্গে reply দিল তমাল। আবার ওপাশ থেকে messege এ

সুমি: আজ মণ্ডপে আসবি তো?
তমাল: হ্যাঁ,, রে আসব। তুই কী করছিস???
সুমি: এইতো ঘুম থেকে উঠলাম,,, পরে কথা বলছি,, মণ্ডপে দেখা হবে tata…
তমাল: Ok,ok … tata…

মোবাইলটা চার্জে বসিয়ে বারান্দায় গেল তমাল। আকাশটা দারুণ করেছে আজ। দক্ষিণ দিক দিয়ে গঙ্গার বাতাস বইছে। বাতাসে বেশ পূজো পূজো গন্ধ। ভেবেই ভালো লাগছে তমালের। তমাল ভাবল, এই পূজোতে সে সুমিকে তার ভালোবাসার কথা জানাবে।
সুমি তমালের পাড়ারই একটা মেয়ে, তমালের থেকে বছরের ছোট। ছোটো থেকেই দুজনে দুজনকে চেনে। তবে এই চেনা-পরিচয়টা বছর দুই আগের থেকে তমালের মনে ভালোবাসার সৃষ্টি করেছে। তমালের চোখে সুমি এক অসামান্য মেয়ে। সুমিকে সে খুব শ্রদ্ধা করে। সুমির সেই টানা টানা চোখ, ঠোঁটের কোণে মিষ্টি হাসি ………….ইস্, তমাল যেন আর ভাবতেই পারছে না।

তমাল (মনে মনে ) : নাঃ, এবার সুমিকে বলবই।
আর সাত-পাঁচ না ভেবে, তমাল ঘরে এসে তৈরি হয়ে নিল। মণ্ডপে পৌঁছে তমালের চোখ ছানাবড়া, বেশ বুঝতে পারছে ওর heartbeat suparfast mail এর মতো হয়ে গেছে। সুমি মণ্ডপের দালেনে বসে ফুলের মালা গাঁথছে, কি অসাধারণই না লাগছে ওকে দেখতে। পরনে হলুদ রঙের তাঁতের শাড়ি, ভেজা চুলটা আলগা করে খোপা করা আর ওর একগাল হাসি।

তমাল(মনে মনে): কি সুন্দর লাগছে সুমিকে!!
আস্তে আস্তে তমাল এগিয়ে গেল ওর দিকে।

তমাল: কি রে !
সুমি: এই যে Mr. কুম্ভকর্ণ এত দেরি করলেন যে ?
সুমির চাহনিতে তমালের গলা দিয়ে আওয়াজ বেরোচ্ছে না।

তমাল: না…..মানে…আজ….. তোকে….মানে..না…ঘুম… দেরি…
সুমি: কি বলছিস? মাথা গেছে।
তমাল: ওহ্ না, না কিছু না
সুমি: আচ্ছা শোন হাতটা ধুয়ে একটু এদিকে আয় তো, আমাকে help কর
তমাল: আসছি।

ষষ্ঠীর সারাটা সকাল সুমির সাথে অনেক কাজ করল তমাল। এভাবে ষষ্ঠীটা ভালোই কাটল দুজনের। সপ্তমী রাতে বসল গানের আড্ডা। রাত তখন ১১ টা। প্রথম গান তমালের …

তমাল: আমারও পরাণ যাহা চায়, তুমি তাই, তুমি তাই গো…….
এরপর একে একে বকুল, মিনি, টুকুর পর সুমির পালা এল ……
সুমি: কার মিলনও চাও বিরহে, তাহারে কোথা খুঁজিছ……

আবার সকলে এক এক করে গান করল। তমাল মনে মনে বলে উঠল, ইস সুমিকে উদ্দেশ্য করে গানটা করলাম, মেয়েটা মনে হয় কিছুই বোঝেনি। এবার তমালের পালা: প্রেমেরও জোয়ারে ভাসাব দোহারে, পাল তুলে দাও, দাও,দাও,দাও…
বেশ জমে উঠল আড্ডা। তমাল বাড়ি ফিরল রাত ২টো নাগাদ। সারারাত ঘুমোতে পারল না সে, মনে একটাই প্রশ্ন, সুমি কি কিছুই বুঝল না গানগুলোর মানে?
পরেরদিন অষ্টমী। সেদিন সুমিকে অনবদ্য সুন্দর লাগছিল। খোলা চুল,কালো রঙের জামদানি। তমাল সেদিন লাল রঙের পাজামা-পাঞ্জাবি। অষ্টমীতে ফুচকা খাওয়া, ধুনুচি নাচ, গল্প, আড্ডা সব মিলিয়ে এক জমজমাট ব্যাপার। এসবের মধ্যেও তমালের মাথায় একটা কথাই ঘুরছে, কি করে সুমিকে ভালোবাসার কথা জানাবে!!

নবমী….. নবমীর সব প্ল্যান ভেস্তে দিল বৃষ্টিটা। কখনো টিপটিপ, কখনো ঝমঝম ….. একনাগাড়ে বৃষ্টি। সারাটাদিন বাড়িতেই ছিল তমাল। অবশেষে ভাবল , নাঃ কাল সুমিকে propose করবই।
দশমী… সকাল সকাল তৈরি হয়ে মণ্ডপে চলে গেল তমাল। …..

মণ্ডপে বিসর্জনের প্রস্তুতি চলছে। পাড়ার কাকিমারা সিঁদূর খেলায় ব্যস্ত। তমাল অনেকক্ষণ যাবৎ সুমির অপেক্ষা করছে। বেলা ২টো নাগাদ সুমি আসল। দেবী দূর্গার আরেকরূপ লাগছিল ওকে। লাল রঙের জামদানি, আলগা করে খোপা, কপালে বড়ো কালো টিপ্। তমাল ওকে দেখতে পেয়েই মিনিকে বলল: এই মিনি, যাঃ তো তোর সুমিদিদিকে বল আমি ওকে রথতলার মাঠে ডাকছি।

মিনি: আচ্ছা।

রথতলার মাঠ……

প্রায় ১৫মিনিট পর সুমি আসল। তমাল একটু আড়ালেই দাড়িয়ে ছিল। তমাল আচমকা সুমির ডান হাতটা পেছন থেকে ধরে ওকে কাছে টেনে নিল, আর বাঁ হাতটা দিয়ে সুমির চোখ বন্ধ করে দিল।
সুমি: কে? কে?
তমাল(সুমির কানের কাছে): আমি….. তোমাকে কিছু কথা বলার ছিল। শর্মিষ্ঠা ,,, তুমি আমার মৃণ্ময়ী, তুমি আমার লাবণ্য। আমার ধূসর রঙের জীবনটাকে আমি তোমার রঙে রাঙাতে চাই। সবুজ অরণ্যে, তপ্ত প্রান্তরে আমি তোমার হাত ধরে হাঁটতে চাই। আমার সাথে ? উত্তরের অপেক্ষায় থাকব।
তমাল সুমির হাত ছেড়ে দিল। সুমি সঙ্গে সঙ্গে সেখান থেকে চলে গেল।

সন্ধ্যে ৭টা, প্রতিমা বিসর্জনের পালা। সকলে প্রতিমা নিয়ে বাবুঘাটে পৌঁছে গেছে। প্রচণ্ড ভিড়। ঢাকে বিষাদের সুর। তমাল ওই কথা বলার পর সুমির সাথে আর চোখ মেলাতে পারেনি। সুমিও কেমন যেন একটা করছিল। তমাল ঘাটের একটু নির্জন জায়গায় দাড়িয়ে প্রতিমা নিরঞ্জন দেখছে। হঠাৎ কোথা থেকে সুমি এসে ওর পাশে দাড়াল। তমালের heartbeat আবার বেড়ে গিয়েছে।

সুমি: তোর স্থায়ী রঙিন জীবনের জন্য অনেক শুভেচ্ছা।
তমাল কয়েক সেকেণ্ড চুপ করেছিল। তারপর দুজনেরই ঠোঁটের কোণে মিষ্টি হাসি। তমাল সুমির হাত ধরল। প্রেমের উষ্ণ অনুভূতি। নতুন প্রেমের সূচনা।

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook

Instagram

You Tube

"At the end of Love there is Pure Love"

Pure Love © 2018 | Privacy Policy